ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ৮:০২
বাংলা বাংলা English English

মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘টিউলিপ নাম হওয়ায় কম্পিউটার কেনেননি খালেদা’


শেখ রেহেনার মেয়ের নামে নাম হওয়ায় নেদারল্যান্ডসের টিউলিপ কোম্পানি থেকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ১০ হাজার কম্পিউটার কেনেননি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে নবনির্মিত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।- খবর বাসসের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‍আমরা ’৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় গুরুত্বারোপ করি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেই, প্রযুক্তি শিক্ষার ব্যবস্থা করি এবং সস্তায় কেনার জন্য কম্পিউটার ও এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশের ওপর থেকে শুল্ক কমিয়ে দিই, শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করি। সেই সঙ্গে আমরা আরেকটি উদ্যোগ নিয়েছিলাম যে, বিভিন্ন স্কুলে আমরা কম্পিউটার দেব। শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার শিখবে। এ জন্য বিভিন্ন কম্পিউটার সংগ্রহ করি। পরে ১০ হাজার কম্পিউটার কেনার একটি প্রকল্প হাতে নেই। কম্পিউটার কেনার জন্য তখন নেদারল্যান্ডসের সরকার একটা প্রস্তাব দিয়েছিল যে, তারা অর্ধেক খরচ দেবে, আমরা দেব বাকিটা। শর্ত হচ্ছে- কম্পিউটার কিনতে হবে নেদারল্যান্ডসের কোম্পানি থেকে। আমরা এতে রাজি হয়ে যাই।

তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে- নেদারল্যান্ডসের একটি ফুলের নাম টিউলিপ আপনারা জানেন। তাদের কম্পিউটার প্রতিষ্ঠানের নামও টিউলিপ নামে। আমাদের অতি জ্ঞানী তদানিন্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে কে জানি বোঝায় যে, শেখ রেহেনার মেয়ের নাম টিউলিপ। নেদারল্যান্ডসের সেই কোম্পানিটিও টিউলিপের নামে। কাজেই সেখান থেকে কম্পিউটার নেওয়া যাবে না। তাই উনি নেদারল্যান্ডস থেকে কম্পিউটার আনার বিষয়টি বাতিল করে দেন। ফলে নেদারল্যান্ডসের সেই কোম্পানি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মামলা করে। এ মামলা পরিচালনা করতে আইনজীবী নিয়োগ করতে হয়। এতে অনেক খরচ হয়। বাংলাদেশ একটি শাস্তি পায়। প্রায় ৬০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হয়। ১০ হাজার কম্পিউটার তো গেলই, উল্টো আরও ৬০ কোটি টাকা দিতে হলে দেশের সরকারপ্রধানের সিদ্ধান্তে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এ ধরনের সরকারপ্রধান থাকলে দেশের উন্নতি কীভাবে হবে আপনারাই ভালো জানেন। পরে আমরা ক্ষমতায় এসে অ্যানালগ টেলিফোনগুলো ডিজিটাল করে দেই। দেশে তখন একটা মাত্র মোবাইল ফোন কোম্পানি সেটিও খালেদা জিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খানের। এক একটা ফোনসেটের দাম ছিল ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। ফোন করলেও প্রতি মিনিটে ১০ টাকা, ধরলেও ১০ টাকা। আমি ‘৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে এটি বেসরকারি খাতে ছেড়ে দিই। ফলে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হয়। দাম কমে এবং সারা দেশের টেলিযোগাযোগকে আমরা ডিজিটাল করি। সেই সঙ্গে স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণের উদ্যোগ নেই।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি গবেষণার উন্নয়নে এবং দেশে যথাযথ জ্ঞানসম্পন্ন বিজ্ঞানী-গবেষক সৃষ্টিতে ‘জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স’ বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলেও আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা এসময় বিশ্বব্যাপী করোনা সংক্রমণ দ্রুত বেড়ে যাওয়ায় দেশের জনগণকে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান। সবাইকে মাস্ক ব্যবহার এবং করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকার আরোপিত ১১ দফা বিধিনিষেধ কঠোরভাবে পালনেরও পরামর্শ দেন তিনি।