ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি, সকাল ৭:৫৩
বাংলা বাংলা English English

মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন


ইতালির রোমে বাংলাদেশ দূতাবাসে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ ডিসেম্বর) সকাল থেকে শুরু হয় বিজয় দিবস উৎসব।

রোমে অবস্থিত ইতালি, সার্বিয়া ও মন্টেনিগ্রোর জন্য নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শামীম আহসান সকাল সাড়ে ৯টায় দূতাবাস কর্মকর্তা ও কর্মচারীর উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন।

এরপর এক মিনিট নীরবতা পালন করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়েছে।

বিদেশি অতিথি, ইতালি প্রবাসী স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভার্চুয়াল উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব আয়োজন করা হয় দূতাবাসের সম্মেলন কক্ষে।

প্রথমে পবিত্র ধর্মগ্রন্থসমূহ থেকে পাঠ, ৫০তম বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রেরিত বাণী পাঠ এবং ‘স্বাধীনতা শব্দটি কি করে আমাদের হলো’ শীর্ষক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন ছিল আকর্ষণীয় উল্লেখযোগ্য কর্মসূচি।

সেই সঙ্গে আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন বাংলাদেশের দুজন অনারারি কনসালসহ অন্য বিদেশি অতিথিবৃন্দ। সবাই বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তীতে উষ্ণ অভিনন্দন জানান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের চলমান উন্নয়ন অভিযাত্রার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

রাষ্ট্রদূত শামীম আহসান বলেন, বঙ্গবন্ধুর সম্মোহনী নেতৃত্বই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের মূল চালিকাশক্তি। রাষ্ট্রদূত ২০২১ সালের বিশেষ তাৎপর্য তুলে ধরে উল্লেখ করেন যে ইতিহাসের এই মাহেন্দ্রক্ষণে বাংলাদেশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতা ও মহান বিজয় দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তী উদ্‌যাপন করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্যের জন্য বিশ্ব পরিমণ্ডলে রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

স্থানীয় নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু এবং সব শহিদের প্রতি তাদের গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। তারা বঙ্গবন্ধু ও শহিদদের লালিত স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার দৃঢ় প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করেন।

সেই সঙ্গে ঢাকাস্থ জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগদান করে দূতাবাসের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী স্বতঃস্ফূর্তভাবে জাতীয় পতাকা হাতে শপথ গ্রহণ করেন।

রোম বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে বিজয় দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানটি দিনভর ছিল প্রাণচাঞ্চল্যে ভরা ও ঐতিহাসিক আলোকে উপভোগ্য। অনুষ্ঠানের সাংস্কৃতিক পর্বে হাইব্রিড মাধ্যমে উপস্থিত অতিথিরা শিশু শিল্পীদের পরিবেশনায় দেশাত্মবোধক গান ও নাচের ধারণকৃত অংশ উপভোগ করেন।

সুস্মিতা সুলতানার পরিচালনায় ও স্থানীয় সংগঠন সঞ্চারী সংগীতায়নের শিক্ষার্থী দীপা পোদ্দার, দেয়া পোদ্দার, স্বস্তিকা রুপন্তি বণিক, পুনম শীল, মিথিলা দাস মেঘা ও সানি বণিকের পরিবেশনা দর্শকদের মুগ্ধ করেছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবারের শহিদ সদস্যবৃন্দ এবং মুক্তিযুদ্ধের সকল শহিদের বিদেহী আত্মার প্রতি মাগফিরাত কামনা করে এবং দেশের উত্তরোত্তর উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয় অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে।

কাউন্সেলর (শ্রম ও কল্যাণ) এরফানুল হক ও আশফাকুর রহমান, দ্বিতীয় সচিবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বিজয় দিবস অনুষ্ঠানে নেপলস্‌ ও কাতানিয়াতে নিযুক্ত বাংলাদেশ অনারারি কনসালগণ, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, প্রবাসী বাংলাদেশিরা, ইতালি ও ইউরোপীয় গণমাধ্যমকর্মীরা এবং দূতাবাসের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।