ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ২:১৪
বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম:
বছর বছর বেড়েই চলেছে দুর্ঘটনায় সড়কে প্রাণহানি উদ্বোধনের অপেক্ষায় দেশের প্রথম ভ্রাম্যমাণ জাদুঘর রাজধানীর রামপুরায় ঘাতক বাসচালক আটক, ৮ বাসে আগুন রামপুরায় অনাবিল পরিবহনের ধাক্কায় শিক্ষার্থীর মৃত্যু, কয়েকটি বাসে অগ্নিসংযোগ ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণায় প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিচ্ছে না’ ওমিক্রন আতঙ্ক: এইচএসসি পরীক্ষা হবে কি না জানালেন শিক্ষামন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী সম্পর্কে জানতে পড়তে পারেন যে বই ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামি শুক্কুরের মৃত্যুদণ্ডের রায় স্থগিত হেফাজত মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম আর নেই ভয়ংকর ওমিক্রন নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১৫ নির্দেশনা

বছর বছর বেড়েই চলেছে দুর্ঘটনায় সড়কে প্রাণহানি উদ্বোধনের অপেক্ষায় দেশের প্রথম ভ্রাম্যমাণ জাদুঘর রাজধানীর রামপুরায় ঘাতক বাসচালক আটক, ৮ বাসে আগুন রামপুরায় অনাবিল পরিবহনের ধাক্কায় শিক্ষার্থীর মৃত্যু, কয়েকটি বাসে অগ্নিসংযোগ ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণায় প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিচ্ছে না’ ওমিক্রন আতঙ্ক: এইচএসসি পরীক্ষা হবে কি না জানালেন শিক্ষামন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী সম্পর্কে জানতে পড়তে পারেন যে বই ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামি শুক্কুরের মৃত্যুদণ্ডের রায় স্থগিত হেফাজত মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম আর নেই ভয়ংকর ওমিক্রন নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১৫ নির্দেশনা
মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ১০৮ রোগী হাসপাতালে ভর্তি


সারা দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরও ১০৮ জন। এনিয়ে এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগে নভেম্বরের ২৪ দিনে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ৩ হাজার ৮৬ জন ভর্তি হয়েছেন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে সারাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরে মোট ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ হাজার ৭৪১ জন। এরমধ্যে মারা গেছেন মোট ৯৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১০৮ জন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি হাসপাতালে ৮৭ জন এবং ঢাকার বাইরে নতুন করে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ২১ জন।

এ বছরে ডেঙ্গুতে মারা যাওয়া ৯৮ জনের মধ্যে চলতি মাসে ৬ জন মারা গেছেন, অক্টোবরে ২২ জন, সেপ্টেম্বরে ২৩ জন, আগস্টে ৩৪ জন ও জুলাই মাসে ১২ জন মারা গেছেন।

চলতি বছর মোট আক্রান্তদের মধ্যে নভেম্বরে ৩ হাজার ৮৬ জন, অক্টোবরে ৫ হাজার ৪৫৮ জন, সেপ্টেম্বরে ৭ হাজার ৮৪১ জন, আগস্টে ৭ হাজার ৬৯৮ জন, জুলাইয়ে ২ হাজার ২৮৬ জন এবং জুন মাসে ২৭২ জন ও মে মাসে ৪৩ জন ডেঙ্গু রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হন।

এর আগে ২০১৯ সালে ডেঙ্গুর প্রকোপ মারাত্মক আকার ধারণ করে। ওই বছর এক লাখের বেশি মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। মারা যায় ১৪৮ জন। ডেঙ্গুতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয় ২০০২ সালে, সেবার ৫৮ জনের মৃত্যুর সংবাদ দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ ছাড়া ২০০১ সালে ৪৪ জন মারা যায়। ২০১৯ সালে ডেঙ্গু ভয়ংকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করলেও করোনা মহামারি মধ্যে ২০২০ সালে ডেঙ্গু তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি। তবে এবার উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে ডেঙ্গু রোগী।

ডেঙ্গু প্রকোপের এ সময়ে বাসাবাড়িতে অব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিসপত্রে পানি জমতে না দেওয়াসহ দিনে ও রাতে মশারি টানানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশেজ্ঞরা।

দেশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৩০০ মানুষ প্রাণ হারান। তবে সরকারি হিসেবে মৃতের সংখ্যা ১৭৯।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি নিরাপদ এবং কার্যকর ডেঙ্গু ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা এখনও চলছে। তাই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা মেনে চলা এবং প্রতিরোধমূলক প্রোটোকল মেনে চলা সর্বোত্তম উপায়। এটি মনে রাখা উচিত যে ডেঙ্গু একটি সংক্রমণ হিসেবে রয়ে গেছে, যা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার মাধ্যমে নির্মূল করা যায়। যতক্ষণ পর্যন্ত ভালো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত এটি সম্পূর্ণ রূপে এড়ানো যায়। দরজা, জানালার পর্দা, প্রতিষেধক, কীটনাশক সামগ্রী, কয়েলের ব্যবহার করতে হবে। ত্বকের সংস্পর্শে যাতে মশা কম আসতে পারে এমন পোশাক অবশ্যই পরতে হবে। প্রাদুর্ভাবের সময় স্প্রে হিসেবে কীটনাশক প্রয়োগ করা যেতে পারে। মশা ডিম পারতে পারে এমন জায়গায় নিয়মিত নজরদারি চালাতে হবে। খোলা পাত্রে পানি জমতে দিলে হবে না, এ জন্য নিয়মিত নজরদারি করতে হবে।