ঢাকা, শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি, দুপুর ১২:৩৩
বাংলা বাংলা English English

নারীর সঙ্গে আপত্তিকর ভিডিও নিয়ে যা বললেন সেই আ.লীগ নেতা

একটি গোপন কক্ষে নারীর সঙ্গে আপত্তিকর ভিডিও ফাঁসের পর সমালোচনার মুখে পড়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চিত্ত রঞ্জন দাস।

এদিকে, চিত্ত রঞ্জন দাসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন ওই নারী। ফেসবুকে ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর সবুজবাগ থানায় মামলাটি করা হয়ছে। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ওই মামলায় জামিন পাওয়ার পর চিত্তরঞ্জন দাস এ বিষয়ে একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

এতে তিনি ওই ভিডিও ভাইরালের পেছনে সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশ্রাফুজ্জামান ফরিদকে দায়ী করেন। যারা ফেসবুকে ভিডিওটি ভাইরাল করেছেন তারা সরাসরি থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফরিদের মদদপুষ্ট হয়ে ওই কাজ করছেন বলে অভিযোগ তার।

চিত্ত রঞ্জন দাস স্ট্যাটাসে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যে নারীটি শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনেছেন। তার শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের শত্রুতা। এটি ব্যক্তিগত কোনো শত্রুতা নয়। বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঐতিহ্যবাহী মন্দির শ্রী শ্রী বরদেশ্বরী কালিমাতা মন্দির ও মহাশ্মশানের জায়গা অন্যায়ভাবে অবৈধ দখল করে রেখেছিল অভিযোগকারী নারীর শ্বশুরবাড়ির পরিবারের কয়েকজন সদস্য।’

‘১৯৯৫ সালে আমি মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকে এই পরিবারসহ মন্দিরের জায়গা অবৈধ দখল করে রাখা সকলের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাসহ সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলি এবং তাদের অনেক আর্থিক ও সামাজিকভাবে ক্ষতি করতে সক্ষম হই। সেই থেকেই এই সরদার বাড়ির সাথে আমার শত্রুতার সূত্রপাত। এর আগেও বহুবার তারা আমাকে বহু হামলা মামলার সম্মুখীন করেছে। কিন্তু প্রতিবারই ব্যর্থ হয়েছে।’

তিনি বলেন, বর্তমানে যে ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে তারা আমাকে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাইছে তার ছক তারা বহুদিন আগে থেকে এঁকেছেন। এর পিছনে সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশ্রাফুজ্জামান ফরিদ এর সরাসরি মদদপুষ্ট হয়ে কাজ করছেন। ফরিদ অতি অল্প সময়ে ক্যাসিনো কাণ্ড, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ ও রাজনৈতিক শক্তির অপব্যবহার করে অঢেল সম্পত্তির মালিক হয়েছেন। গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় মনোয়ন বঞ্চিত হবার পর থেকেই আমার পেছনে নানা ষড়যন্ত্রের জাল বুনতে থাকে। এছাড়াও আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ফরিদ, তার ভাই মুরাদ ও ভাগ্নে শাওনের মাদক ব্যবসাসহ সকল অপকর্ম বন্ধে জোরালো ভূমিকা রাখি। তার জেরেই তারা অভিযোগকারী এই পান্নাকে আমার পেছনে লেলিয়ে দেয় বলে আমি নিশ্চিত। এটি এই দুই গ্রুপের পূর্ব পরিকল্পনার অংশ।

অভিযোগকারী নারী ও তার স্বামীর সাংবাদিকতার সুবাদে তার সাথে ভালো সম্পর্ক জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আফরোজা পান্না ও তার স্বামী লিটন সরদার অনলাইন সাংবাদিকতা করে বলে দীর্ঘদিন যাবৎ তারা আমার বিভিন্ন মানবিক ও সামাজিক কার্যক্রমের নিউজ কভার করতো এবং নানা সময়ে আমার কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা নিয়ে চলতো। তাদের সাথে আমার ভালো সম্পর্ক ছিল।’

‘সেই সম্পর্কের সুযোগ নিয়ে গত কয়েকদিন আগে অভিযোগকারী পান্না ও তার স্বামী লিটন আমার কাছে আসে এবং অবৈধভাবে দখল করা মন্দিরের একটি দোকান তার শ্বশুর সমির উদ্দিন সরদার অন্য কারো কাছে বিক্রি করে দিয়েছে বলে আমাকে জানায়। এখন তাদেরকে দোকানটি সংস্কার করার অনুমতি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করে। লুকিয়ে মন্দিরের সম্পত্তি অন্য কারো কাছে বিক্রি করায় আমি তাদেরকে তিরষ্কার করি এবং মন্দিরটিতে বকেয়া ভাড়া ৪০ হাজার টাকা রশিদের মাধ্যমে পরিশোধ করে তারপর দোকানটি সংস্কার করতে পারবে বলে জানিয়ে দেই। সেদিনসহ তারা আরও কয়েকদিন একই দাবি নিয়ে আমাকে বুঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে তারা ফরিদকে সাথে নিয়ে এই অপকৌশলের আশ্রয় নেয়।’

তিনি বলেন, রাজনীতির বাইরেও আমি একজন সাংস্কৃতিক পৃষ্ঠপোষক ও অনুরাগী। প্রতি বছর শারদীয় দুর্গা উৎসবে আমি নানা সামাজিক নাটক মঞ্চায়ন করার ব্যবস্থা করি। এটি সকলেরই জানা। এবারো পূজা সামনে রেখে একটি নাটক মঞ্চায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নাটকটির নাম ‘ঢাকার অসুখ- ডাক্তার চাই’। নাটকটিতে আমারও একটি চরিত্র রয়েছে।

ঘটনার দিনের বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘ওইদিন আমি আমার কার্যালয়ের পাশের রুমে নাটকটির পরিচালক সাইফ বাপ্পী ও এক অভিনেত্রীর সঙ্গে নাটকের রিহার্সেল করছিলাম। ঠিক তখনই ওই নারী তার স্বামীসহ সেখানে উপস্থিত হন। তারপর কিছুক্ষণ অবস্থান করে আমাদের রিহার্সেল দেখতে থাকেন। তারপর আমার সঙ্গে জরুরি কথা আছে বলে সবাইকে পাশের রুমে যেতে বলেন। সবাই অন্যরুমে যাওয়ার পর সে আমার সঙ্গে একটু অভিনয় করবে বলে আবদার করে। এবং তার স্বামীকে নিয়ে বাইরে চলে আসে। কিছুক্ষণ পর আবার এসে আমাকে আমার সাথে রিহার্সেল করতে চায় এবং আমি সরল মনে রাজি হয়ে নাটকের একটি দৃশ্য অভিনয় করি। আর অভিযোগকারী নারী এই সুযোগে গোপন ক্যামেরায় তা ধারণ করে নানা প্রযুক্তি ব্যবহার করে এডিটিং করে বিষয়টিকে বাজেভাবে সামাজিকমাধ্যমে ভাইরাল করে। আমাকে রাজনীতি থেকে বিতারিত করতে পারলে ফরিদ গংদের অবৈধ কর্মকাণ্ড পুনরায় শুরু করতে পারবে বিধায় অভিযোগকারীকে মোটা অংকের টাকা আর নানা সুযোগ সুবিধার প্রলোভন দেখিয়ে তারা এই ভাইরাল করার কাজটি করে।’

‘অতীতেও বহুবার তারা আমাকে এমন বিব্রতকর ও সম্মানহানিকর পরিস্থিতিতে ফেলেছিল কিন্তু প্রতিবারই আমি আমার দৃঢ় মনোবল ও জনগণের দোয়ায় সকল প্রতিকূলতা জয় করেছি। এবারো তাদের এই ষড়যন্ত্র থেকে আইনি মোকাবিলার মাধ্যমে বেরিয়ে আসব।’

এদিকে চিত্ত রঞ্জন দাসের বিরুদ্ধে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সবুজবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মু. মুরাদুল ইসলাম। তিনি জানান, মামলায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চিত্ত রঞ্জন দাসকে আসামি করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এর আগে, একটি কক্ষে এক নারীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখা যায় চিত্ত রঞ্জন দাসকে। শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাতে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি গোপনে কেউ ধারণ করে ছড়িয়ে দিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে চিত্তরঞ্জনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার সঙ্গে নাটকের রিহার্সেল করার নামে ভিডিও ধারণ করে এটি পরিকল্পিতভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আমাকে বিপদে ফেলতেই প্রতিপক্ষরা এটি করেছে।