ঢাকা, শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি, দুপুর ১২:২৮
বাংলা বাংলা English English

হাতিয়ায় ট্রলারডুবিতে নিহত ১, নৌযান চলাচল বন্ধ

বৈরি আবহাওয়ায় প্রচণ্ড বাতাসে নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার মেঘনা নদীতে দু’টি মাছ ধরার ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে হাতিয়ার চেয়ারম্যানঘাট-ভাসানচর এলাকার মধ্যবর্তী ইসলাম চর এলায় ট্রলার দুটি ডুবে যায়। এ সময় ১৪ জেলেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে ট্রলারডুবির ঘটনায় ইউছুফ মাঝি (৫০) নামের এক জেলের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া নিখোঁজ আছেন আবুল কালাম নামের আরও এক জেলে। এদিকে নদী উত্তাল থাকায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাতিয়ায় সকল ধরনের নৌ-যান চলাচল সামিয়ক বন্ধ রাখা হয়েছে।

সোমবার ভোরে মেঘনা নদীর ইসলাম চর এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত ইউছুফ মাঝি চানন্দী ইউনিয়নের পশ্চিম আদর্শ গ্রামের হোসেনের ছেলে। নিখোঁজ আবুল কালাম একই এলাকার বাতেনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাতে চানন্দী ইউনিয়নের চম্পা ঘাট থেকে ৭ জন জেলে নিয়ে মিরাজ উদ্দিনের একটি মাছ ধরার ট্রলার ও ইউছুফ মাঝির একটি ট্রলার আরও ৯ জন জেলেসহ মেঘনা নদীতে মাছ ধরতে যায়। রোববার বিকেলে চেয়ারম্যানঘাট-ভাসানচর এলাকার মধ্যবর্তী এলাকার ইসলাম চর এলাকায় প্রচণ্ড বাতাসের কবলে পড়ে ট্রলার দুটি। এ সময় ১৬ জন জেলেসহ ট্রলার দুটি নদীতে ডুবে যায়। পরে পাশ্ববর্তী একটি ট্রলারের সহযোগিতায় ১৪ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও নিখোঁজ হন ইউছুফ মাঝি ও আবুল কালাম। পরে সোমবার ভোরে স্থানীয় জেলেরা ইউছুফ মাঝির ট্রলারটি উদ্ধারের পর ট্রলারের কেবিন থেকে ইউছুফের লাশ উদ্ধার করা হয়। সোমবার দুপুর পর্যন্ত মিরাজ উদ্দিনের ট্রলারের আবুল কালাম নিখোঁজ রয়েছেন।

হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইমরান হোসেন বলেন, নিহত জেলের লাশ তার পরিবার নিয়ে গেছে। নিখোঁজ জেলেকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। নিহতের পরিবারকে সরকারিভাবে আর্থিক সহযোগিতা করা হবে।

তিনি আরও বলেন, সাগর উত্তাল থাকায় সব ধরনের নৌ-যান চলাচল সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গভীর সমুদ্রে মাছ শিকারে যাওয়া ট্রলারগুলোকে স্ব-স্ব ঘাটে অবস্থান করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।