ঢাকা, বুধবার, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ১২:২৭

মালয়েশিয়ায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

করোনায় মালয়েশিয়ায় মৃত্যুর এ যাবৎকালের সব রেকর্ড ভেঙে ১৯৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ২৪১ জনে।

এর আগে একদিনে এত মৃত্যু আগে কখনও দেখেনি মালয়েশিয়া। দেশটিতে নতুন নতুন ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে লাফিয়ে লাফিয়ে ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ১১ হাজার ৯৮৫ জন। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৯ লাখ ৫১ হাজার ৮৮৪ জনে এবং গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৭ হাজার ৯০২ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ৯৮ হাজার ৯৫৫ জন।
স্থানীয় সময় বুধবার (২১ জুলাই) দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক ডা. নূর হিশাম আব্দুল্লাহ কোভিড-১৯ এর নিয়মিত ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে ডা. নূর হিশাম আব্দুল্লাহ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাটাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ, যে হারে রোগী বাড়ছে তাতে যতই হাসপাতালের বেড বাড়ানো হয় তাতে রোগীর জায়গা দেওয়া সম্ভব হবে না।
এদিকে, রাজধানী কুয়ালালামপুর, সেলাঙ্গর, নেগারি সেম্বিলান, জহুর, পাহাং, সাবাহ, মেলাকা, কেলান্তান, পেনাং, পেরাক, সারাওয়াক, তেরেঙ্গানু রাজ্যসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।
মালয়েশিয়ার করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান রয়েছে ‘ন্যাশনাল রিকভারি প্ল্যান’ এর প্রথম ধাপের লকডাউন। পাশাপাশি দেশটিতে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং সিস্টেম (এসওপি) স্বাস্থ্যবিধি সুরক্ষা শতভাগ কার্যকর করতে গত ১ জুলাই থেকে দেশজুড়ে অভিযানে নেমেছে মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন বিভাগসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা অন্তত ২১টি সংস্থা। এ অভিযানের নাম দেওয়া হয়েছে ‘অপারেসি পাতুহ’।

এছাড়াও মঙ্গলবার পর্যন্ত পুরো মালয়েশিয়াজুড়ে এক কোটি ৫০ লাখ ৭১ হাজার ৮১৪ জন মানুষকে টিকা প্রদান করা হয়েছে। যার মধ্যে প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করেছেন এক কোটি ৩ লাখ ১ হাজার ৯০৫ জন (৪৪ শতাংশ) এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকা নেওয়া সম্পন্ন করেছেন ৪৭ লাখ ৬৯ হাজার ৯০৯ জন (২০.৪ শতাংশ) মানুষ।