ঢাকা, বুধবার, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ১:৪৭

রাজধানীর সাইন্সল্যাবে চামড়া কেনাবেচা বন্ধ

রাজধানীর সাইন্সল্যাবে চামড়া কেনাবেচা বন্ধ করে দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এর আগে বুধবার (২১ জুলাই) সকাল থেকে ক্রেতা-বিক্রেতাদের দর কষাকষির মধ্য দিয়ে সায়েন্স ল্যাবে শুরু হয় কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনা। পরে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এদিকে পোস্তায় শুরু হয় চামড়া লবণজাত করার কাজ।

বছরজুড়ে দেশের চামড়া শিল্পে যে পরিমাণ কাঁচামালের দরকার হয় তার প্রায় অর্ধেকই আসে কোরবানির পশু থেকে। তাই ঈদুল আজহায় চামড়া কিনতে বিশেষ প্রস্তুতি নিয়ে থাকেন ব্যবসায়ীরা।

এরই ধারাবাহিকতায় ঈদের দিন সকাল থেকেই রাজধানীর সায়েন্স ল্যাব আর পোস্তায় শুরু হয় চামড়া কেনাবেচা। এখানে চামড়া বিক্রি করতে আসা অনেকেই অন্য স্থানে চলে যান ভালো দাম পাওয়ার আশায়। মৌসুমী ব্যবসায়ীরা চামড়ার ভালো দাম না পাওয়ার অভিযোগ করলেও ট্যানারি সংশ্লিষ্টরা বলেন, তাদের সামর্থ্যের বাহিরে দর হাঁকানো হয়।

পোস্তায় চামড়া সংগ্রহের পর শুরু হয় লবণজাত করার কাজ। এ বছর অন্তত ২ লাখ পিস কাঁচা চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। চামড়া শিল্পকে সচল রাখতে সংশ্লিষ্ট সব কার্যক্রমকে লকডাউনের বিধিনিষেধের বাহিরে রাখার আহ্বান জানান সংশ্লিষ্টরা।

এ বছর ঢাকার জন্য গরুর লবণযুক্ত কাঁচা চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪০ থেকে ৪৫ টাকা এবং ঢাকার বাহিরে ৩৩ থেকে ৩৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়া ১৫ থেকে ১৭ টাকা, বকরির চামড়া ১২ থেকে ১৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছর ঢাকার জন্য লবণযুক্ত কাঁচা চামড়ার দাম গরুর ক্ষেত্রে ছিল প্রতি বর্গফুট ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। আর ঢাকার বাহিরে ছিল ২৮ থেকে ৩২ টাকা।