ঢাকা, বুধবার, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ১:০৯

আল-আকসায় লাখো মুসল্লির ঈদ উদযাপন

জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে এক লাখ মুসল্লি ঈদুল আজহা পালন করেছেন। মঙ্গলবার (২১ জুলাই) ফিলিস্তিনি সংবাদসংস্থা ওয়াফা এমন খবর দিয়েছে।

ঈদের জামাতে অংশ নিতে সকাল থেকেই মুসল্লিরা আল-আকসা প্রাঙ্গণে জড়ো হতে থাকেন। আল্লাহর প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করে হযরত ইব্রাহীমের (আ.) প্রাণপ্রিয় সন্তান ইসমাইল (আ.)-কে উৎসর্গের ঘটনা স্মরণ করে অন্তত চার ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করেন মুসল্লিরা।

সম্প্রতি ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধে বহু ফিলিস্তিনি পরিবার তাদের স্বজন হারিয়েছেন। তাদের কাছে এবারের ঈদ কোনো অর্থ বহন করছে না।
তিন দিনের এ উৎসবে ৭৩ বছর বয়সী মোহাম্মদ ঈসা তার নাতি-নাতনিদের জন্য নতুন পোশাক কিনে এনেছেন। এরপর কোরবানির জন্য একটি পশু বাছাই করতে তাদের খামারে নিয়ে যান।
কিন্তু তার ৩৯ বছর বয়সী মেয়ে মানার ও ১৩ বছরের নাতনি নিহত হওয়ার শোক এখনো তিনি কাটিয়ে উঠতে পারেননি। ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় তার নিহত হন।
গত ১৩ মে ইসরায়েলি বিমান হামলায় তাদের শরণার্থী শিবিরি গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। মানারের আরও তিনটি সন্তান হামলা থেকে বেঁচে যান।

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ঈসা বলেন, আমাদের বয়স হয়ে গেলেও বুকের যন্ত্রণা কমছে না। কিন্তু শিশুদের এ শোকের আবহ থেকে বের করে নিয়ে যেতে হবে। তাদের ঈদ উৎসবের মধ্যে বেঁচে থাকার সুযোগ করে দিতে হবে। যাতে মা ও বোন হারানোর দুঃখ তারা ভুলতে পারে।
হামাস বলছে, ইসরায়েলি হামলায় দুই হাজার ২০০ বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে। এছাড়া ৩৭ হাজার বসতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২৫০ জনের বেশি ফিলিস্তিনি দখলদারদের বিমান হামলায় নিহত হয়েছেন।
মহামারির বিপর্যয়ের মধ্যেই বিশ্বজুড়ে মুসলমানেরা ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন। এমন এক সময় এই উৎসব পালন করা হচ্ছে, যখন অতিসংক্রামক ডেল্টা ধরন মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক তৈরি করছে।