ঢাকা, বুধবার, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ২:০৪

সাগরে যেতে প্রস্তুত শত শত ট্রলার

৬৫ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আগামী শুক্রবার (২৩ জুলাই) থেকে আবারো ট্রলার নিয়ে সাগরে মাছ শিকারে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন জেলেরা। এদিকে নিষেধাজ্ঞা চলাকালে প্রকৃত জেলেরা সরকারি সহায়তা না পেলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রভাবশালীরা অ-জেলেদের নিবন্ধন করায় ক্ষোভ জানিয়েছেন তারা। জেলা মৎস্য কর্মকর্তার দাবি, প্রকৃত জেলেরা স্ব স্ব উপজেলায় যোগাযোগ করলে নিবন্ধনের আওতায় আসতে পারবে। আর অনিয়ম হলে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস জেলা প্রশাসনের।

মিশু জলদাস ও আব্দুল মান্নান। দুইজনেরই বসবাস কক্সবাজার শহরের নতুনবাহারছড়া এলাকায়। প্রথমে জেলে পেশায় নিয়োজিত বললেও পরে স্বীকার করেন তাদের প্রকৃত পেশা কী এবং কীভাবে জেলে হিসেবে নিবন্ধিত হয়ে সরকারি সহায়তা পাচ্ছেন। তারা বলেন, বরশি দিয়ে মাছ শিকার করি। এভাবেই নিবন্ধন করতে পেরেছি।

বাঁকখালী নদীর ৬ নম্বর ঘাটের নদীতে নোঙর করা শত শত ট্রলার। আগামী শুক্রবার সাগরে মাছ শিকারে যাবেন জেলেরা। তাই উপকূলে নোঙর করা ট্রলারে ফিরে নিচ্ছেন সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে তাদের অভিযোগ, জনপ্রতিনিধি ও প্রভাবশালীরা অ-জেলেদের নিবন্ধন করে সরকারি সহায়তার আওতায় এনেছেন। আর প্রকৃত জেলেরা দ্বারে দ্বারে ঘুরেও নিবন্ধিত হতে পারছেন না।

ভুক্তভোগীরা বলেন, অনেক বছর ধরেই আমরা জেলে। কিন্তু আমাদের জেলেদের ঠিক মতো কিছু দেয়নি। এগুলো করেছে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

অ-জেলেদের বাদ দিয়ে প্রকৃত জেলেদের নিবন্ধনের আওতায় আনার দাবি জানালেন মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ওসমান গণি টুলু। তিনি বলেন, প্রকৃত জেলেদেরকে এ নিবন্ধনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম খালেকুজ্জামান জানান, প্রকৃত জেলেরা স্ব স্ব উপজেলায় যোগাযোগ করলে নিবন্ধনের আওতায় আসতে পারবে।

তিনি বলেন, ৬৩ হাজার ১৯৩ জন নিবন্ধিত হয়েছেন। এর বাহিরে যদি এখনো কেউ থেকে থাকেন, তাদেরকে আবার বলব যে তারা যেন নিবন্ধিত হয়ে নেন।

এদিকে, নিবন্ধন নিয়ে অনিয়ম হলে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. আমিন আল পারভেজ। তিনি বলেন, যদি অনিয়মের কথা থাকে, তবে সুনির্দিষ্টভাবে আমাদের নজরে নিয়ে আসলে জেলা প্রশাসন থেকে এটা তদন্ত করে সংশোধনের ব্যবস্থা করা হবে।

জানা গেছে, জেলায় লক্ষাধিক জেলের মধ্যে এ পর্যন্ত ৬৩ হাজার ১৯৩ জন জেলে নিবন্ধনের আওতায় এসেছেন।