ঢাকা, বুধবার, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ১:৫৫

কুমল্লিার কারাগারে বন্দি নর্যিাতনরে ভডিওি ভাইরাল

কুমল্লিা কন্দ্রেীয় কারাগারে এক বন্দকিে নর্যিাতনরে ঘটনা সামাজকি যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ছে। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ৫ মনিটি ৪ সকেন্ডেরে ভডিওি শনবিার ফসেবুকে ভাইরাল হয়। ভডিওিতে দখো যায়- কারাবন্দি শাহজাহান বলিাসকে মঝেতেে ফলেে বধেড়ক পটোনো হচ্ছ। এ সময় তাকে ঘরিে কয়কেজন কারারক্ষীকে দখো যায়। এ ঘটনা তদন্তে তনি সদস্যরে তদন্ত কমটিি গঠন করে কারা র্কতৃপক্ষ। এ ঘটনার জন্য দুই কারারক্ষীকে বরখাস্ত করা হয়ছে।

এ ছাড়া নর্যিাতনরে ভডিওি ধারণ ও প্রকাশ করার সঙ্গে জড়তি সন্দহেে তনি কারারক্ষীকে সাময়কি বরখাস্ত করা হয়ছে।

কারা সূত্র জানায়, ভারতরে ত্রপিুরার র্দুগাপুর গ্রামরে আবদু ময়িার ছলেে শাহজাহান বলিাস ডাকাতি ও হত্যা মামলার ৫৮ বছররে সাজাপ্রাপ্ত আসাম। ২৬ বছর ধরে কুমল্লিা কারাগারে তনিি বন্দি রয়ছেনে। সম্প্রতি ১২ পসি ইয়াবাসহ তনিি কারারক্ষীদরে হাতে ধরা পড়নে। এরপর কসে টবেলিে ডকেে নয়িে তাকে জজ্ঞিাসাবাদ করা হয়। ভডিওি ফুটজেে দখো যায়-জজ্ঞিাসাবাদরে এক র্পযায়ে বলিাসরে দুই হাত বঁধে মাটতিে ফলেে বধেড়ক পটোনো হচ্ছ। এতে তনিি অসুস্থ হয়ে পড়নে। তাকে কারা হাসপাতালে চকিৎিসাও দওেয়া হয়।

ভাইরাল হওয়ার পর বন্দি নর্যিাতনরে বষিয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়রে সুরক্ষা সবো বভিাগ ও কারা অধদিপ্তররে র্কমর্কতাদরে নজরে আস। এরপর  তনি সদস্যরে তদন্ত কমটিি গঠন করা হয়। কমটিরি প্রধান হলনে চট্টগ্রাম কন্দ্রেীয় কারাগাররে সনিয়ির জলে সুপার শফফিুল ইসলাম খান।

সদস্যরা হলনে-ব্রাহ্মণবাড়য়িা কারাগাররে জলে সুপার ইকবাল হোসনে ও ফনেী জলো কারাগাররে জলোর শাহাদত হোসনে মঠিু।

কুমল্লিা কন্দ্রেীয় কারাগাররে জলে সুপার আসাদুর রহমান বলনে, বন্দি বলিাসকে বধেড়ক পটোনো হয়ন। ১৬ এপ্রলি বন্দরি কক্ষ তল্লাশি করে মাদক পাওয়া যায়। পরদনি তাকে আলাদা সলেে পাঠানো হয়। সলে পরর্দিশনে গলেে বলিাস জানায়-তনিি আর এ সলেে থাকতে পারবনে না। অন্য বন্দি ও কয়দেদিরে মতো করে তাকে রাখা হোক। এরপর ১২ মে তাকে কসে টবেলিে আনলে তনিি অস্বাভাবকি আচরণ করনে। আসাদুর রহমান আরও বলনে, ওই সময় সনিয়ির জলে সুপার শাহজাহান আহমদে উপস্থতি ছলিনে। তার সামনইে বন্দি বলিাস নজিরে মাথা দয়িে লোহার দরজায় আঘাত করনে। নবিৃত্ত করার চষ্টো করা হলে তনিি আরও উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করনে। পরে তাকে রক্ষীরা লাঠি দয়িে আঘাত করনে। এতে বলিাসরে গায়ে বড় কোনো আঘাত লাগনেি বলওে তনিি দাবি করনে।

এ ব্যাপারে সাংবাদকিদরে সনিয়ির জলে সুপার শাহজাহান আহমদে জানান, এক বছর ধরে কারাগারে মাদক সবেনরে বরিুদ্ধে অভযিান চলছ। এ সময় সহকারী প্রধান কারারক্ষী তরকিুল ইসলামকে ৫২২ পসি ইয়াবাসহ আটক করা হয়। র্বতমানে তনিি জলেে আছনে। তরকিুলসহ আরও কয়কেজন আমার বরিুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছনে।

শাহজাহান আহমদে আরও বলনে, ভডিওিতে দখেবনে বলিাসকে নর্দিয়ভাবে পটোনো হয়ন।  আমরা তাকে নবিৃত্ত করার চষ্টো করছেি মাত্র। এর বশেি কছিু নয়। এ ছাড়া যে দুজন কারারক্ষী তাকে পটিয়িছেনে তাদরে বরিুদ্ধে বভিাগীয় শাস্তমিূলক ব্যবস্থা নওেয়া হয়ছে।  অন্য তনি কারারক্ষীকে কনে সাময়কি বরখাস্ত করা হলো-এমন প্রশ্নরে জবাবে তনিি বলনে, আগে যারা মাদকসংশ্লষ্টিতায় চাকরি হারয়িছেনে তাদরে সঙ্গে যোগসাজশে তারা (তনি কারারক্ষী) সসিটিভিরি ফুটজে বাইরে পাঠয়িছেনে। এটা জলে কোডরে লঙ্ঘন। এ কারণে তাদরে সাময়কি বরখাস্ত করা হয়ছে।

বন্দি নর্যিাতনরে ঘটনায় সহকারী প্রধান কারারক্ষী শাহনয়োজ আহমদে ও কারারক্ষী দদিারুল ইসলামকে বরখাস্ত করা হয়ছে। ভডিওি বাইরে পাঠানোর অভযিোগে কারারক্ষী শরফিুল ইসলাম, অনন্ত চন্দ্র দাশ ও চরণ চন্দ্র পাল সাময়কি বরখাস্ত হয়ছেনে। এদকি, বরখাস্ত হওয়ার ঘটনা শুনে গলায় ফাঁস লাগয়িে আত্মহত্যার চষ্টো করনে কারারক্ষী অনন্ত। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে র্ভতি করা হয়ছে।

সূত্র  যুগান্তর