বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:২৯
কুড়িগ্রাম খাদ্য বিভাগে বস্তা ক্রয়ে দুর্নীতি ৭ কর্মকর্তা প্রত্যাহার বানারীপাড়ায় প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার সম্পত্তি জবরদখলের পায়তারা বিশ্ব নবী (সাঃ) কে অবমাননা করার প্রতিবাদে কলাপাড়ায় বিক্ষোভ সমাবেশ সাংবাদিক ফোরামের চরফ্যাশনে কমিটি গঠন সভাপতি মামুন- সম্পাদক মিজান করোনাকালে ১০ লাখের অধিক দুস্থ ও অসহায়কে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে: সিটি মেয়র উলিপুরে মেয়রের বাসা থেকে পরিচ্ছন্নকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার ভোলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চারজনকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ বানারীপাড়ার কুরআন শিক্ষক হাফেজ       মাওলানা আনোয়ার হুজুর আর নেই আরও ৩০ ব্যক্তির মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল ১ নভেম্বর থেকে মাধ্যমিকের ৩০ দিনের সিলেবাস বাস্তবায়ন শুরু

নিউজিল্যান্ডের নির্বাচনে জাসিন্দা আর্ডার্নের বিপুল বিজয়

  অনলাইন ডেস্ক।

নিউজিল্যান্ডে শনিবারের নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আর্ডার্ন। সম্ভবত কয়েক দশকের মধ্যে এই প্রথম দেশটিতে একক-দলীয় সরকার গঠন হতে যাচ্ছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও এএফপির খবরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

মহামারী করোনাভাইরাস মোকাবেলায় তার দারুণ সফলতার জন্যই জনগণ ফের তাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিছে নিয়েছেন বলে বিশ্লেষকরা দাবি করছেন। এর মধ্য দিয়ে তার সংস্কার এজেন্ডা বাস্তবায়নের সুযোগ পেয়ে গেলেন তিনি।

দুই তৃতীয়াংশ ভোট গণনা হয়েছে। যার মধ্যে ৪৯ দশমিক দুই শতাংশ ভোট পেয়েছে আর্ডার্নের লেবার পার্টি। অর্থাৎ দেশটির পার্লামেন্টের ১২০ আসনের মধ্যে ৬৪টিতে তার দল জয়ী হওয়ার আভাস দিচ্ছে।

১৯৯৬ সালে সমানুপাতিক ভোটিং ব্যবস্থা গ্রহণের পর নিউজিল্যান্ডে এই প্রথম কোনো দল এত বেশি আসনে জয়ী হতে যাচ্ছে।

ওয়েলিংটনের ভিক্টোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনৈতিক ভাষ্যকার ব্রিইস এডওয়ার্ডস বলেন, এটা একটি ঐতিহাসিক পালাবদল। এর মধ্য দিয়ে নতুন কোনো ভিত্তি তৈরি হয়েছে।

শনিবারের এ নির্বাচন সেপ্টেম্বরেই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯ এর নতুন প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ায় ভোট এক মাস পিছিয়ে দেয়া হয়।

নিউজিল্যান্ডের এখনকার নির্বাচনী ব্যবস্থায় কোনো দলের পক্ষে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন দুরূহ। কিন্তু আর্ডার্নের এখন যে জনপ্রিয়তা তাতে তার দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে যেতে পারে বলেও অনেকে মনে করছেন।

নিউজিল্যান্ডে নতুন পার্লামেন্ট বেছে নেয়ার ভোট শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় শুরু হয়ে চলে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত।

এর আগে ৩ অক্টোবর থেকে আগাম ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছিল। সেখানেও ১০ লাখের বেশি মানুষ তাদের রায় জানিয়েছেন।

প্রতিনিধি বেছে নেয়ার পাশাপাশি শনিবার নিউ জিল্যান্ডের ভোটারদেরকে স্বেচ্ছামৃত্যুর বৈধতা দেয়া এবং গাঁজা বৈধ ও নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত দুটো গণভোটেও অংশ নিতে হয়েছে।