সোমবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:২৯

মধ্যসত্বভোগীদের কারণেই কৃষিপণ্যের দাম বাড়ে: বাণিজ্যমন্ত্রী

কৃষক ও ক্রেতার মাঝখানে মধ্যসত্বভোগী ফড়িয়া ব্যবসায়ীদের কারণেই কৃষকের কাছ থেকে ভোক্তা পর্যায়ে এসে অনেকটা বেশি বেড়ে যায় কৃষিপণ্যের দাম।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর একটি হোটেলে ‘যুব শপ ও এক্সপ্রেস কিচেন এবং কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

এসময় মন্ত্রী বলেন, কর্মক্ষম যুব সম্প্রদায়ের হাত ধরেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ। আর এই যুব সম্প্রদায় কৃষিপণ্যের বিপণনে এগিয়ে এলে কৃষক ও ভোক্তার মাঝখানে দূরত্ব কমে যাবে; এতে উপকৃত হবে সবপক্ষই।

যুব সম্প্রদায়কে কর্মক্ষম হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল।

প্রতিমন্ত্রী জানান, মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এ পর্যন্ত ৬২ লাখ যুবককে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। গত ১০ বছরেই প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ৩২ লাখ যুবক। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত যুবকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে এ পর্যন্ত ৯ লাখ যুবককে ২ হাজার ১শ’ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। আর চলতি বছর থেকে যে ঋণ দেয়া হবে সেখানে সুদের হার থাকবে মাত্র ৫ শতাংশ।

প্রতিমন্ত্রী জানান, তথ্য-প্রযুক্তির প্রসারকে কাজে লাগিয়ে ২০৩০ সালের মধ্যে সাড়ে ৭ লাখ যুবককে ভার্চুয়ালি প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর মূখ্যসচিব আহমদ কায়কাউস বলেন, সমস্যা সমাধানে গতানুগতিক ভাবনার বাইরে গিয়ে উপায় খুঁজতে হবে। কারণ, সমস্যার মতো করে সমাধান খুঁজলে সংকট কাটবে না। বাংলাদেশের তেমন কোন প্রাকৃতিক সম্পদ নেই, অথচ বিপুল সংখ্যক জনসংখ্যার এই দেশ এগিয়ে চলছে। যুব সম্প্রদায়ের সাহসী উদ্যোগের ওপর ভর করেই বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে। আর নানা ধরনের নতুন নতুন উদ্যোগের কারণেই খুব শিগগিরই সোনার বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণ হবে।

এসময়, ফোর্থ আই এগ্রো ইনোভেশনস অ্যান্ড টেকনোলজিস’র চেয়ারম্যান কাজী গোলাম আলী সুমন বলেন, বাংলাদেশে কৃষিপণ্যের উৎপাদন বাড়ছে। তবে, দাম কমছে না। এর অন্যতম কারণ, এখনও সুষ্ঠু বাজার ব্যবস্থাপনা গড়ে ওঠেনি। যার কারণে কৃষকের হাতে উৎপাদিত পণ্য ভোক্তার কাছে আসতে ঘুরতে হয় বিভিন্ন হাত। আর এতেই দাম বেড়ে যায়। এই বাড়তি দাম থেকে কৃষক বঞ্চিত হলেও অতিরিক্ত খরচ গুনতে হয় ভোক্তাকে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে কৃষিকে সনাতনী দৃষ্টিভঙ্গির বাইরে নিয়ে আসতে হবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এই এক্সপ্রেস কিচেনের মাধ্যমে অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে কৃষিপণ্যের প্রক্রিয়াজাতকরণ সম্পন্ন হবে এবং তুলনামূলক স্বল্প দামে ভোক্তার হাতে পৌঁছে দেয়া হবে।