শনিবার, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:০৮

প্রধানমন্ত্রীর কাছে এইচএসসি পরীক্ষার্থীর খোলা চিঠি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আমি একজন এইচএসসি পরীক্ষার্থী। সকল এইচএসসি শিক্ষার্থী এখন মানসিক চাপের মধ্যে আছে। ইতিমধ্যে আমরা শিক্ষা কার্যক্রম থেকে ১০ মাস পিছিয়ে গেছি। যে ক্ষতির ঘাটতি কখনও পূরণ করা যাবে না।

করোনার মধ্যে ইতিমধ্যে আমাদের অনলাইনে বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে যেখানে অনেক শিক্ষার্থীর অনুপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। এখান থেকেই বুঝা যায়, অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের কতটুকু উপস্থিতি ছিল। বাংলাদেশে জরিপ করলে দেখা যাবে ৫০ শতাংশ শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসের আওতাভুক্ত নয়। বর্তমান যে পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছে মনে হয় না, আগামী এপ্রিল বা মে মাসের আগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে।

এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে যদি কিছু দিনের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলাও হয় তা আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলোতে সঠিকভাবে মানা হবে না। কারণ, প্রতি রুমে আমরা ১০০ জনের বেশি উপস্থিত থাকি। আলাদা ক্লাস রুমের ব্যবস্থা থাকাও সম্ভব নয়।

করোনা পরিস্থিতি যদি স্বাভাবিক হয় তাহলে দেখা যাবে আমাদের জীবন থেকে আরও অনেক সময় চলে যাবে। এর মধ্যে কোনভাবেই সম্ভব না আমাদের পরীক্ষা নেওয়া। ধরে নিলাম আমাদের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দেওয়া হলো। তিনমাস সময়ে কীভাবে সিলেবাস সম্পূর্ণ করা সম্ভব হবে। এছাড়া আগের পড়াগুলো রিভিশন দেওয়ার বিষয় রয়েছে। যা আমাদের পক্ষে কোনোভাবেই সম্ভব হবে না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনি আমাদের সকলের মা। আপনি জানেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতির জন্য অনেকের অর্থনৈতিক অবস্থাও সংকটে। কারো কারো পরিবার খাবারটুকুও সংগ্রহ করতে পারছে না। এই সময় যদি এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করা হয় তাহলে অনেক পরিবার ফর্ম ফিলআপের টাকা দিতে পারবে না। যা তার পড়ালেখাকে হুমকির মুখে ফেলবে।

এখন এমন সিদ্ধান্ত নিলে একদিকে একজন শিক্ষার্থী অর্থনৈতিক অসচ্ছলতার জন্য মানসিক চাপে পড়বে যা তার এইচএসসি পরীক্ষার ভালো প্রস্তুতির জন্য বাধা। যা মরার উপর খাড়ার ঘা। সুতরাং বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা কোনভাবেই এইচএসসি পরীক্ষা দিতে পারব না।

আবার ১ বছর সময় বাড়ানোও সম্ভব নয়। কেননা আমরা অনেক পিছয়ে গেছি। তাই সকল শিক্ষার্থীর পক্ষ থেকে আমি আপনার কাছে দুটি প্রস্তাব তুলে ধরছি।

১. আমাদের মানসিক চাপ নিরসনের জন্য সার্বিকভাবে বিবেচনা করে অটোপাস দেয়া হোক।

২. অথবা এসাইনমেন্ট এর মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হউক।

আপনিই আমাদের শেষ ভরসা। আপনি এখন পর্যন্ত যে সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছেন সেগুলো আমাদের পক্ষে ছিল। তাই উপরের বিষয়গুলো বিবেচনা করার বিনীত অনুরোধ করছি।

নিবেদক
মো. মেহেদী হাসান,
সরকারি আনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ